স্বেচ্ছামৃত্যুর আবেদন ৪ গৃহশিক্ষকের জেলাশাসক মারফৎ মুখ্যমন্ত্রীর কাছে !!


কোচবিহার : গৃহ শিক্ষকদের দাবি দিনের পর দিন স্কুল শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন বেড়েই চলছে। তাই বন্ধ করার দাবি তুলে শুক্রবার কোচবিহার জেলার চারজন গৃহশিক্ষক স্বেচ্ছামৃত্যুর আবেদন জানালেন প্রকাশ্যে । স্বেচ্ছামৃত্যুর অনুমতি চেয়ে জেলাশাসকের মাধ্যমে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন তাঁরা। তাঁদের দাবি, সরকারি স্কুলের শিক্ষিকরা চাকরির শর্ত মোতাবেক প্রাইভেট টিউশনি করতে পারেন না। সেই আইন কড়াভাবে প্রয়োগ করতে হবে জেলা প্রশাসনকে। ইতিমধ্যে কোচবিহার শহর এবং শহর সংলগ্ন এলাকায় ৫৮ জন শিক্ষক গৃহশিক্ষকতা ছেড়ে দেবেন বলে অঙ্গীকার করেছেন। ইতিমধ্যেই জেলাশাসকের কাছে মুচলেকাও দিয়েছেন তাঁরা। তবে গৃহশিক্ষকের দাবি, জেলার ৯০ শতাংশ শিক্ষক এখনও প্রাইভেট টিউশন দিয়ে চলছে।


শুক্রবার কোচবিহারের জেলাশাসক মারফৎ মুখ্যমন্ত্রীর কাছে স্বেচ্ছামৃত্যুর আবেদন পাঠিয়েছেন চার গৃহশিক্ষক অমিতাভ কর, সংঘমিত্রা কর, দেবাংশু চট্টোপাধ্যায় এবং অমলেন্দু দাস। এদিন, কোচবিহার জেলাশাসকের দপ্তর পর্যন্ত মিছিল করেন তাঁরা। তারপরই জমা দেওয়া হয় আবেদনপত্র। গৃহশিক্ষকদের দাবি, এর আগে তাঁরা অনেকবার প্রশাসনের কাছে দরবার করেছেন, কিন্তু তাতেও কোনও ফল হয়নি। এমনকী উত্তরকন্যায় শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছেও তাঁরা অভিযোগ করেছেন। শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন বন্ধ করতে পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছিলেন। এর আগে কোচবিহার জেলা প্রশাসনের তরফে, শিক্ষকদের গৃহশিক্ষকতা না করার অঙ্গীকার করে মুচলেকা জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। মাত্র ৫৮ জন শিক্ষক ওই মুচলেকা জমা দিয়েছেন। কিন্তু, তাতেও কোনও ফল হয়নি। জেলার শিক্ষকরা এখনও প্রাইভেট টিউশন করে টাকা উপার্জন করে যাচ্ছে বলে গৃহ শিক্ষকদের দাবি। গৃহ শিক্ষকদের দাবি, সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী, কোনও শিক্ষক বা শিক্ষাক্ষেত্রে যুক্ত অশিক্ষক কর্মচারী কোনও লাভজনক সংস্থার সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারেন না। তা সত্ত্বেও জেলার স্কুল শিক্ষকরা প্রাইভেট টিউশন করছেন বলে ওই গৃহশিক্ষকদের অভিযোগ।

আপাতত চারজন গৃহশিক্ষক স্বেচ্ছামৃত্যুর আবেদন জানিয়েছেন স্কুল শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশন বন্ধ করার জন্য। যদি এই আবেদন গ্রাহ্য না হয় তাহলে আগামী দিনে আরও বড় আন্দোলন হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা। তবে কোচবিহার ই প্রথম নয়, এর আগেও দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় এই ধরনের আন্দোলন হয়েছে। সরকারি বা সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকারা প্রাইভেট টিউশনি করতে পারবেন না। এই দাবিতে পথে নেমেছেন গৃহশিক্ষকরা।
এই রকম আরও বিভিন্ন নিউজ সম্বন্ধে জানতে আমাদের ফেসবুক পেইজটি লাইক করে রাখুন। Netdarpan এর ফেসবুক পেইজ লাইক করার সাথে সাথে আমাদের ওয়েবসাইট কে Subscribe করে রাখুন সকল নিউজ তৎক্ষণাৎ আপনার কাছে পৌঁছে যাওয়ার জন্য।। এতে পশ্চিমবঙ্গ , ভারতবর্ষ এবং সারা বিশ্বের বিভিন্ন কোনায় ঘটে ধাকা বিভিন্ন রকমের খবর সম্বন্ধে আপনারা বিস্তারিতভাবে সম্পূর্ণভাবে আপডেটেড থাকতে পারবেন। ধন্যবাদ।।

0 Shares

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.