বাংলা ব্যান্ড ‘পৃথিবী’ – এর বড় প্রাপ্তি ও পৃথিবী ভক্তদের জন্য সুখবর

বাংলা ব্যান্ড ‘পৃথিবী’ – এর তৃতীয় অ্যালবাম ‘চ্যাপ্টার- থ্রি’ এর ‘চলো উড়ে যাই’ গানটি কৌশিক গাঙ্গুলী পরিচালিত ‘কিশোর কুমার জুনিয়র’ ছায়াছবিতে জায়গা করে নিয়েছে। এই ছায়াছবিটি আজকে শুভ মুক্তি পেয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন সিনেমা হলে এই ছায়াছবি আজ থেকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে। তাছাড়া ভারতের অন্যান্য প্রান্তেও কিছু কিছু সিনেমা হলে এই সিনেমাটি রিলিজ হয়েছে। এই ছায়াছবিতে অভিনয় করছেন বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম খ্যাতনামা অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। পৃথিবী ব্যান্ড -এর পক্ষ থেকে ইন্দ্রদীপদা এবং পরিচালক কৌশিকদার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়েছে এইরকম একটি ছায়াছবিতে তাদের ব্যান্ডের গানকে বেছে নেওয়ার জন্য।

prithibi1

বাংলা রক ব্যান্ড পৃথিবী অফিসিয়ালি ২০০৫ সালে কলকাতার বুকে গড়ে ওঠে। কিন্তু ব্যান্ডটির উৎপত্তি ২০০১ সালে আশুতোষ কলেজে ঘটেছিল। ২০০৫ সালে মিউজিক চ্যানেল ‘সংগীত বাংলা’ দ্বারা আয়োজিত ‘বন্দেমাতরম’ নামক কম্পিটিশনে রানার্স আপ হয়েছিল এই রক ব্যান্ডটি। তখন থেকেই ব্যান্ডটি জনপ্রীয়তা পেতে শুরু করে । ২০০৭ সালে ‘আশা অডিও’ থেকে তাদের প্রথম অ্যালবাম “পৃথিবী” রিলিজ করে এবং ২০১০ সালে একই রেকর্ড লেবেল থেকে তাদের দ্বিতীয় অ্যালবাম “চ্যাপ্টার -টু “রিলিজ করে। এই অ্যালবামটি খুবই জনপ্রীয়তা লাভ করে এবং ২০১১ সালে ” জি বাংলা গৌরব সম্মান অ্যাওয়ার্ড ” -এ ‘বেস্ট বেঙ্গলি ব্যান্ড অ্যালবাম’ ক্যাটাগরিতে নমিনেট পায়। তারা তাদের তৃতীয় অ্যালবাম “চ্যাপ্টার-৩ ” রিলিজ করে ২০১৬ সালে ২১ শে ডিসেম্বর এই তৃতীয় অ্যালবাম এর মধ্যেই “চলো উড়ে যাই” গানটি রয়েছে। এই গানটি কৌশিক গাঙ্গুলী পরিচালিত “কিশোর কুমার জুনিয়র” ছায়াছবিতে স্থান পাওয়ার পর যে মিউজিক ভিডিওটি তৈরি হয়েছে সিনেমার জন্য সেই ভিডিওটি “আশা অডিও” এর ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ পেয়েছে এবং দর্শকদের মধ্যে প্রচুর জনপ্রিয়তা লাভ করে চলছে। এটা সকল পৃথিবী ফ্যানদের জন্য খুবই আনন্দদায়ক তাছাড়া প্রতিটি বাংলা ব্যান্ডের সঙ্গীতপ্রিয় মানুষদের জন্য খুবই গর্বের বিষয়।



বর্তমানে বাংলা রক ব্যান্ড পৃথিবীতে সদস্য সংখ্যা চারজন। লিড ভোকাল, কম্পোজার, লিরিসিস্ট হলেন কৌশিক চক্রবর্তী, প্রশান্ত রেসিস্ট, রাজা গিটারিস্ট এবং অর্ণব ড্রামার। ২০০১ সালে আশুতোষ কলেজের তিন জন ছাত্র কৌশিক ,অভিজিৎ এবং সৌভিক মিলে এই ব্যান্ডটি মূলত তৈরি করে। ব্যান্ড তৈরির আগে তারা সাধারণত কলেজের ক্যান্টিনে একসাথে মিলে গান বাজনা করত। এদের মধ্যে কৌশিক আগে থেকেই সোলো আর্টিস্ট হিসাবে কাজ করত এবং কলকাতার বাইরেও বিভিন্ন প্রজেক্টের সাথে যুক্ত ছিল। কৌশিক বরাবরই দলগত প্রয়াসের মাধ্যমে মিউজিক কে সকলের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করত এবং পৃথিবী ব্যান্ডটি সেই উদ্দেশ্যেই গড়ে তুললো।

0 Shares

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.